সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

আত্মহত্যা কোন সমাধান নয়

মঙ্গলবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩

 

 

১৩৫ বার পড়া হয়েছে

বক্কর সিদ্দিকীঃ
দশম শ্রেণী তে পড়া অবস্থায় দুষ্টুমির ছলে এক ক্লাসফ্রেন্ডের বিঁচিতে কলম দিয়া গুতা দেয়ার অপ্রাধে” আমাদের একাউন্টটিং স্যার” দুজনরে এমন বেতানো বেতাইছে টানা একটা সপ্তাহ পিঠ দিয়া রক্ত বাইরাইসে। জ্বরের জন্য এক সপ্তাহ স্কুলেও যেতে পারিনি। আম্মারে গিয়া বলাতে আরো বেশি দুইটা ত্থাপ্পড় খাইছিলাম।
আর এখনকার ছেলে মেয়েদের কি আবেগ !
উনিশ থেকে কুড়ি হলেই আত্নহত্যা করতে হবে।

গফ বফের সাথে কথাকাটি হলেই আত্নহত্যা করতে হবে, হাত কেটে ফেবুতে পিক আপ্লোড দিতে অইবে। কেউ কেউ আরো এককাঠি সরেশ ফেবুতে পোস্ট দিয়া আত্নহত্যা করে। অতচ এদের বয়সে আমি সারাদিন পুকুরে লাফালাফি করতাম তাও ল্যাংটা। ফুটবল ক্রিকেট খেইলা হাতপা কাইটা বাসায় আইসা আম্মার হাতে চ্যাঁচ্যাঁ খাইতাম।

কেন বাপু স্কুলের টিচার টিসি দিলে কি তুমি আর কোথাও পড়াশোনা করার সুযোগ পেতে না?
তুমি আত্নহত্যা করে কি অন্যদেরও আত্নহত্যা করার প্রবনতা বৃদ্ধি করে দিয়ে গেলে না!!
আত্নহত্যা কোন সমাধান নয় ” একটি আত্নহত্যা মানে নিজেকে নিজে খুন করা। নিজের স্বত্তাকে খুন করা। বরং তোমার উচিৎ ছিলো স্যারের ডিশিসানের প্রতিবাদ করা, স্যারের ভুল চোখে আঙুল দিয়া দেখিয়ে দেয়া!

ট্যাগ :

আরো পড়ুন