মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

অর্থনীতির নতুন পথ সন্ধানের এখনই সময়

অর্থনীতির নতুন পথ সন্ধানের এখনই সময়

অর্থনীতির নতুন পথ সন্ধানের এখনই সময়

সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১

 

 

৬৮৯ বার পড়া হয়েছে

প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসঃ
করোনাভাইরাস মহামারি পৃথিবী জন্য এক নজিরবিহীন সংকট সৃষ্টি করেছে। এই সংকট আমাদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক ব্যবস্থার ব্যর্থতাগুলোর পাশাপাশি আমাদের চিন্তা প্রক্রিয়ার সীমাবদ্ধতাও দিন দিন উন্মোচিত করে তুলছে। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যগুলোর মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের অবস্থান একনজরে দেখতে পাই। আমাদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক ব্যবস্থা যেসব সমস্যা তৈরি করেছে, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যগুলোকে তার একটি তালিকা হিসেবে দেখা যায়। একটি নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে এই সমস্যাগুলোর সমাধান নিশ্চিত করতে এগুলোকে লক্ষ্য হিসেবে নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে মূলত আমাদের মনোযোগ আকর্ষণ করার জন্য।
জাতিসংঘ এই সমস্যাগুলো তুলে ধরার আগেও আমরা এগুলো সম্বন্ধে সম্যক অবহিত ছিলাম এবং এগুলোর সমাধানের তাগিদও অনুভব করে আসছিলাম। তবু আমরা সমস্যাগুলো উপেক্ষা করে গিয়েছি এবং পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে দিয়েছি। বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও সম্পদ কেন্দ্রীকরণের বিপদ সম্বন্ধে আমরা ভালোভাবেই জানতাম। একইভাবে দারিদ্র্য, স্বাস্থ্যসেবা, জেন্ডার-বৈষম্য ও অন্যান্য বিষয়ে সমস্যাগুলো সম্বন্ধেও আমরা জানতাম। এগুলোর সমাধানও আমাদের জানা ছিল।
কিন্তু, সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা কোনো উদ্যোগ নিইনি। মানুষ ইচ্ছা করলে যেকেনো কিছুই অর্জন করতে পারে, তার অসাধ্য কিছুই নেই। কিন্তু, এরপরও আমরা সমস্যাগুলো উপেক্ষা করে গেছি। কিন্তু কেন? এর একটি ব্যাখা হতে পারে এই যে, আমরা আমাদের বর্তমান আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থায় এতটাই আসক্ত হয়ে পড়েছি যে এর থেকে বের হয়ে আসার কোনো চিন্তাই আমরা করতে পারছি না। এই ব্যবস্থা যেসব সমস্যা সৃষ্টি করছে সেগুলোর সমাধানে কোনো ইচ্ছাকেই আমরা মনে স্থান দিতে পারছি না। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো বিভিন্ন দেশের সরকার ও তাদের জনগণকে এগুলোর সমাধান করার চিন্তা মাথায় জাগিয়ে দেওয়ার একটি প্রয়াস।
কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বব্যাপী অর্থনীতির চাকা অচল করে দিয়েছে। পৃথিবীর সব জাতি তাদের অর্থনীতির চাকা আবারও সচল করতে এবং মহামারি-পূর্বের অবস্থায় ফিরে যেতে প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছে।
প্রশ্ন হলো— আমরা কেন এক বছর আগে পৃথিবীকে যেখানে রেখে এসেছিলাম, আবারও সেখানটাতেই ফিরিয়ে নিয়ে যেতে যাচ্ছি? আমরা তখন যেপথে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছিলাম, সেটা কি আমাদেরকে কোনো শুভ গন্তব্যে নিয়ে যাচ্ছে, এটা বিশ্বাস করছিলাম? আমরা তো পরিষ্কার জানি আমাদের সেই যাত্রাপথ আমাদেরকে এই পৃথিবীতে আমাদের অস্তিত্বের শেষ প্রান্তে নিয়ে যাচ্ছিল; সেই যাত্রাপথ মানবজাতিকে পৃথিবীর সবচেয়ে বিপন্ন প্রজাতিগুলোর একটিতে পরিণত করেছে। এটা কি আমাদের বুঝতে কষ্ট হওয়ার বিষয় যে আমাদের পথ হতে হবে সম্পূর্ণ বিপরীতমুখী? আমার নিশ্চিত বিশ্বাস আমাদের পথ হওয়া উচিত এর বিপরীত। পুরনো পথে আর নয়। পূর্বের সেই আত্মাহুতির পথে ফিরে যাওয়া পাগলামি ছাড়া আর কিছু নয়।

আমরা এখন মহামারিকে ধন্যবাদ জানাতে পারি যে, মহামারি আমাদের পুরনো যাত্রাপথ রুদ্ধ করে দিয়ে আমাদেরকে নতুন পথে চলার একটি সুযোগ করে দিয়েছে। এখন ঘুরে দাঁড়ানোটা আমাদের জন্য সহজ হবে। আগামী অনেকগুলো প্রজন্ম ধরে অপেক্ষা করলেও এমন একটি সুযোগ আমাদের জন্য আর নাও আসতে পারে। এই সুযোগ হাতছাড়া করা আমাদের জন্য একেবারেই ঠিক হবে না।
পুরনো পথে ফিরে যাওয়া মানে তো সেই পুরনো ব্যবস্থা, পুরনো অবকাঠামো, পুরনো ধ্যান-ধারণা, পুরনো ব্যবসায়িক লক্ষ্য নিয়ে কাজ করা, যেগুলো আরও বৈশ্বিক উষ্ণায়ন, আরও সম্পদ কেন্দ্রীকরণ ইত্যাদি সৃষ্টি করবে, যা পৃথিবীকে মানুষের জন্য একেবারে বসবাস-অযোগ্য করে দেবে।

ভাগ্যক্রমে, আমরা কিন্তু জানি নতুন পথে যেতে হলে কীভাবে বর্তমান ব্যবস্থাটির পুনর্বিন্যাস করতে হবে। এটা করতে হবে মানুষকে বিকল্প পথে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়ে। বর্তমান ব্যবস্থাটি ব্যক্তির জন্য কোনো বিকল্প রাখেনি, প্রত্যেক মানুষকে পূর্বনির্ধারিত পথে চলতে বাধ্য করেছে। ব্যবসার ক্ষেত্রে শুধু এক ধরনের ব্যবসা, মুনাফা সর্বোচ্চকরণের ব্যবসা। পেশা হিসেবে একটাই পেশা। চাকরি করা।

আমরা এমন একটি ব্যবস্থা সৃষ্টি করতে পারি যেখানে মৌলিক অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তগুলোর ক্ষেত্রে প্রত্যেক মানুষের জন্য বিকল্প উন্মুক্ত থাকবে। আর তাদের সম্মিলিত এই সিদ্ধান্তগুলো অর্থনীতির বৈশ্বিক গতিধারা নির্ধারণ করে দেবে। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে এই বিকল্পগুলো মানুষের মধ্যে পরিচিত করা যেতে পারে, যা প্রত্যেক তরুণকে যার যার পথ বেছে নেওয়ার সুযোগ দেবে। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় তরুণদের সামনে কোনো বিকল্প দেওয়া থাকে না, বাছাই করার কোনো সুযোগ থাকে না।

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার একটি লক্ষ্য হওয়া উচিত শিক্ষার্থীদেরকে এটি বলা যে, পৃথিবীতে মানুষের অসাধ্য কিছুই নেই, যদি তারা সম্মিলিতভাবে তা অর্জনে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হয়। তরুণদেরকে এটা বুঝিয়ে দেওয়া উচিত যে, তারা তাদের পছন্দমতো করে একটা পৃথিবী তৈরি করে নিতে পারে। তারা এই পৃথিবী নামক মহাকাশযানের ‘যাত্রী’ নয়, তারা এর চালক। তারা এটাকে নিত্য নতুনভাবে তৈরি করে নিতে পারে এবং যেখানে যেতে চায় সেখানে নিয়ে যেতে পারে। এটা ভুল পথে গেলে এর জন্য কাউকে দায়ী করার কোনো উপায় নেই। প্রতিটি প্রজন্মের দায়িত্ব তারা পৃথিবীকে যেভাবে পেয়েছে তার চেয়ে নিরাপদ ও ভালো পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং যে গন্তব্যে পৌঁছাতে চায় সে গন্তব্যে মসৃণভাবে নিয়ে যাওয়া।

নতুন পৃথিবী সৃষ্টি করতে হলে ব্যবসা সম্বন্ধে আমাদের সনাতন ধ্যান-ধারণা বদলে ফেলতে হবে। আমাদের এখন শিখিয়ে দেওয়া হচ্ছে যে, ব্যবসার লক্ষ্য একটাই, আর তা হচ্ছে ব্যক্তিগত মুনাফা সর্বোচ্চ করা। নতুন ব্যবস্থায় শিক্ষার্থীদেরকে শিখিয়ে দিতে হবে যে, তাদের কাছে দু’টি বিকল্প আছে, আর তা হচ্ছে— প্রথমত, সর্বোচ্চ মুনাফার ব্যবসা; আর দ্বিতীয়ত, মুনাফাবিহীন সামাজিক ব্যবসা।

মানুষ শুধু ব্যক্তিস্বার্থ দ্বারা পরিচালিত হয়, শিক্ষার্থীদের শুধু এটা না শিখিয়ে আমাদের নতুন শিক্ষা ব্যবস্থা তাদের এই শিক্ষা দেবে যে, মানুষ দুই ধরনের স্বার্থ দ্বারা পরিচালিত হয়। ব্যক্তিগত স্বার্থ ও সমষ্টিগত স্বার্থ। এবং প্রত্যেক মানুষ বেছে নেবে সে কোন স্বার্থ পূরণে ব্যবসা করবে। এরকম পছন্দ করার সুযোগটা মানুষের সামনে দিলে এটাই ব্যবসার জগতে একটি মৌলিক পরিবর্তন এনে দেবে। সমষ্টিগত স্বার্থ ও ব্যক্তিগত স্বার্থের (অর্থাৎ ব্যক্তিগত মুনাফার) মধ্যে একটি পরিষ্কার বিরোধ রয়েছে। এই দু’টির মধ্যে তুলনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা থাকবে প্রত্যেক মানুষের কাছে। এর সঙ্গে অবশ্য আরও একটি বিকল্প এসে যাবে। একজনের সামনে বিকল্প থাকবে এটা করা বা অন্যটা করা, অথবা একইসঙ্গে এটা করা এবং অন্যটাও করা।

ট্যাগ :

আরো পড়ুন